কিভাবে লম্বা হওয়া যায়। কিভাবে ঘুমালে লম্বা হওয়া যায় | How to Increase Height

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়। কিভাবে ঘুমালে লম্বা হওয়া যায় | How to Increase Height naturally

 কোটি টাকার প্রশ্ন, কিভাবে লম্বা হওয়া যায়? সত্যি কথা বলতে, লম্বা হওয়ার জন্য আপনার লাইফস্টাইল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আপনি কি খাচ্ছেন, কিভাবে জীবন-যাপন করছেন, এর উপর লম্বা হওয়াটা অনেকাংশে নির্ভর করে।

আরো পড়ুন - আজকের স্বর্ণের দাম কত বাংলাদেশে | ১ ভরি সোনার দাম কত ২০২৩ বাংলাদেশে

কথায় আছে “স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল”। সুন্দর শরীর, সুঠাম দেহের অধিকারি হতে সবাই চায়। শরীরের গঠন সুন্দর হওয়ার জন্য লম্বা হওয়াটাও জরুরি। লম্বা হওয়া নিয়ে আজকাল অনেকের মধ্যে একটা সমস্যা দেখা যায়। বাবা মায়েরা ও অনেক চিন্তা করে, কেন তাদের সন্তান লম্বা হচ্ছে না ঠিকমত।

আরো পড়ুন - গিয়ার সাইকেল দাম কত | সাইকেলের ছবি ও দাম ২০২৪

হাইব্রিড বাই সাইকেল | সাইকেল দাম বাংলাদেশ ২০২৪

মোটা চাকার সাইকেল দাম বাংলাদেশ  ২০২৪

হিরো সাইকেলের ছবি ও দাম বাংলাদেশ ২০২৪

লেডিস সাইকেল এর দাম কত

শরীরের ঠিকমত যত্ন নিলে শরীর বাড়ে। তবে লম্বা হওয়া অনেক সময় বংশগতও হয়ে থাকে। শরীরের গ্রোথ প্লেট যদি কাজ করা বন্ধ করে দেয় তাহলে, লম্বা হওয়া থেমে যায়। ১৪-২০ বছর বয়সে এই জিনিসটা বেশি হয়। তাই, এই বয়সে শিশু কিশোরদের লম্বা হওয়া নিয়ে জটিলতা দেখা দেয়। তবে, সঠিক পুষ্টি ও উন্নত জীবনধারায় শরীর বাড়ে ঠিকমত। আজ আমরা জেনে নিব কিভাবে লম্বা হওয়া যায়।

কিভাবে লম্বা হওয়া যায়। কিভাবে ঘুমালে লম্বা হওয়া যায় | How to Increase Height


কিভাবে লম্বা হওয়া যায়। How to Increase Height

প্রাকৃতিক ভাবে কিভাবে লম্বা হবে নিচে সেই বিষয় সমূহ তুলে ধরা হলো -

লম্বা হওয়ার জন্য খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন


১. স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাদ্য

সঠিক পরিমাণে পুষ্টি দেহের উচ্চতা বৃদ্ধির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাজা শাকসবজি, ফলমূল এবং প্রোটিন জাতীয় খাদ্য প্রতিদিনের তালিকায় রাখতে হবে।


প্লেটের অর্ধেক রাখতে হবে শাকসবজি, চার ভাগের এক ভাগ পূর্ণ করতে হবে প্রোটিন জাতীয় খাদ্য দিয়ে এবং বাকি চার ভাগের এক ভাগ রাখতে হবে শর্করা। এছাড়া, হালকা খাবার হিসেবে থাকতে হবে ফলমূল, সবজি ও কম চর্বিযুক্ত খাদ্য।


প্রোটিন জাতীয় খাদ্যদ্রব্য গুলো হলো মুরগির মাংস, টার্কি, মাছ, শিম, বাদাম এবং লো ফ্যাট জাতীয় খাদ্য। জটিল শর্করার মধ্যে আছে শস্য জাতীয় খাদ্য, আলু।

২. প্রোটিন যুক্ত খাবার খাওয়া

শরীরের বৃদ্ধি ও মাংসপেশি সুগঠিত করার জন্য প্রোটিন খুব জরুরি। প্রতিবেলায় আহারে তাই প্রোটিন অবশ্যই গ্রহন করতে হবে। প্রয়োজনে হালকা খাবার গ্রহণের তালিকায়ও প্রোটিন রাখতে হবে।



যেমন সকালের আহারের জন্য দই রাখা যেতে পারে, দুপুরের জন্য টুনা মাছ, রাতে মুরগির মাংস। এছাড়া, হালকা নাস্তার তালিকায় রাখা যেতে পারে স্ট্রিং চিজ।



৩. প্রতিদিন একটি করে ডিম খাওয়া

পরীক্ষায় দেখা গেছে যেসব বাচ্চারা প্রতিদিন একটি করে ডিম খায়, সেসব বাচ্চার একটু বেশি লম্বা হয় তাদের থেকে যারা প্রতিদিন ডিম খায় না। ডিমে রয়েছে শরীরের বৃদ্ধির জন্য অতি প্রয়োজনীয় প্রোটিন ও ভিটামিন। এছাড়া, এটি সস্তা বলে সবাই কিনে খেতে পারে।


তবে অনেক সময় প্রতিদিন ডিম খেলে, অনেক বাচ্চাদের শারিরীক সমস্যা হতে পারে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।


৪. প্রতিদিন স্নেহ জাতীয় খাবার খাওয়া

দুধ ও দুধ জাতীয় খাদ্যদ্রব্য উচ্চমাত্রায় প্রোটিন, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন বহন করে যা শরীরের পুষ্টি জোগায়। প্রতিদিন এক গ্লাস করে দুধ খাওয়া অথবা দই বা পনির শরীরের জন্য খুবই উপকারি।


প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় পছন্দমত একটি দুধ জাতীয় খাদ্য রাখতে হবে অথবা প্রতিদিন দুধ পান করতে হবে।

৫. ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ট্যাবলেট গ্রহণ

সুষম খাদ্য তালিকার পাশাপাশি সহকারি হিসেবে বিভিন্ন ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ট্যাবলেট রাখা যেতে পারে। এই সব ট্যাবলেট দেহের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে থাকে। ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন এ ও ডি সবচেয়ে বেশি দরকারি। ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার এর তালিকা লেখাটি পড়তে পারেন।

কারণ এগুলো হাড়ের গঠনে সাহায্য করে থাকে। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী তাই ক্যালসিয়াম ও মাল্টি ভিটামিন ট্যাবলেট গ্রহণ করা যেতে পারে।

লম্বা হওয়ার জন্য জীবনযাত্রা পরিবর্তন

১. সঠিক ভঙ্গিতে চলাচল

দেহের সঠিক বৃদ্ধি নজরে আসার জন্য সঠিক ভঙ্গিতে চলাচল করতে হবে। হাঁটার সময় মেরুদন্ড সোজা করে হাঁটতে হবে। কাধ সমান করে এবং সামনে তাকিয়ে হাঁটতে হবে। বসার সময়ও মেরুদন্ড সোজা করে বসতে হবে এবং মুখ সোজা করে রাখতে হবে সামনে।

হাঁটা ও বসার ভঙ্গি ঠিক আছে কিনা সেটা আয়নার সামনে বসে নিজে নিজেই পরীক্ষা করা যায়।

২. প্রতিদিন ৩০ মিনিট করে শরীরচর্চা করা

শরীরের হাড় ও মাংসপেশি সুগঠিত হওয়ার জন্য প্রতিদিন ৩০ মিনিট করে ব্যায়াম করা জরুরি। ব্যায়াম শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং দেহের সঠিক বৃদ্ধিতেও সহায়তা করে।

পছন্দমত একটি ব্যায়াম বাছাই করে নিতে হবে যেটা শরীরের জন্য উপযোগী হয় ও যেটা করে মন ও আনন্দ পায়। যেমন কোন ধরনের খেলাধুলা, নাচের ক্লাসে অংশগ্রহণ, ৩০ মিনিট হাঁটা বা দৌড়ানো।

৩. প্রতিদিন সময়মতো ও নিয়ম করে পরিমিত ঘুম

প্রতিদিনের অন্যান্য কাজের পাশাপাশি নিয়ম করে ঘুমাতে হবে। সারাদিন পরিশ্রমের ফলে শরীরের হাড়, মাংসপেশি ক্লান্ত হয়ে যায়, শরীর ভেঙ্গে পড়ে তখন তাদের বিশ্রামের দরকার হয়। পুনরায় নতুন উদ্যোমে কাজ শুরু করার জন্য এদের দরকার পর্যাপ্ত বিশ্রাম।


তাই ঠিক মত যেন ঘুম হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। ঘুম ঠিকমত হলে শরীরের হাড় ও মাংসপেশির বিশ্রাম ও ঠিক মত হবে এবং তারা পুনরায় শক্তিশালী হয়ে উঠবে। বয়স অনুযায়ী ঘুমের মাত্রা ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। যাদের ঘুম আসে না, তারা তাড়াতাড়ি ঘুমানোর উপায় লেখাটি পড়তে পারেন।

কিভাবে ঘুমালে লম্বা হওয়া যায় | How to Increase Height

কিভাবে ঘুমালে লম্বা হওয়া যায় নিচে তার তালিকা দেয়া হলো -

নবজাতক শিশুর জন্য ১৮ ঘন্টা

    ২ থেকে ৪ বছর বয়সী বাচ্চার জন্য ১৩-২২ ঘন্টা।
    ৩ থেকে ৫ বছর বয়সী বাচ্চার জন্য ১১-১৩ ঘন্টা।
    ৬ থেকে ৭ বছর বয়সী বাচ্চার জন্য ৯-১০ ঘন্টা।
    ৮ থেকে ১৪ বছর বয়সী বয়:সন্ধি কিশোর কিশোরীদের জন্য ৮-৯ ঘন্টা।
    ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী কিশোর দের জন্য ৭.৫-৮ ঘন্টা।
    প্রাপ্তবয়স্ক অর্থাৎ ১৮ থেকে তার উপরে বয়সী মানুষের জন্য ৭-৯ ঘন্টা।

৪. অসুস্থ হলে দ্রুত চিকিৎসা গ্রহণ

অসুস্থ হলে শরীর খুব দ্রুত তা সুস্থ করার চেষ্টা করে।এই অসুস্থতা শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত করে।তাই খুব দ্রুত চিকিৎসা করে সুস্থ হয়ে উঠা উচিত। শরীর বেশি অসুস্থ থাকলে বৃদ্ধি পর্যাপ্ত হয়না তাই তখন খাদ্যাভ্যাসের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে।


৫. বৃদ্ধি পর্যাপ্ত না হলে, ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া

অনেক সময় বংশগত কারণে মানুষ লম্বা কম হয়। তবে যদি দেখা যায় যে পরিবারের সবাই পর্যাপ্ত লম্বা কিন্তু বাচ্চা লম্বা হচ্ছেনা তখন প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।অনেক সময় গ্রোথ হরমোন কম হবার কারণে বা হাইপোথাইরয়েডিজম রোগ থাকার কারণে বৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হয়।


    লম্বা হওয়ার জন্য বিভিন্ন শরীরচর্চা
    বিভিন্ন শরীরচর্চা করেও শরীরের বৃদ্ধি বজায় রাখা যায়। জেনে নিন, কিভাবে ঘুমের ব্যায়াম করতে হয়?
    কিভাবে লম্বা হওয়া যায়
    লম্বা হয়ে টান টান হয়ে শুয়ে হাত লম্বা করে মাথার উপর দিকে দেয়া। এতে মেরুদন্ড প্রসারিত হয়।
    নিচে শুয়ে মাথার উপর হাত টান টান করে রেখে হাঁটু ভাজ করে কোমর উঁচা করতে হবে
    পেটের উপর ভর দিয়ে শুয়ে হাত এবং পা টান টান করে দিতে হবে।

উপসংহার

উপরোক্ত আলোচনা থেকে আমরা জানলাম কিভাবে লম্বা হওয়া যায়। লম্বা হওয়ার উপায় হিসাবে যেসব খাবারের কথা বলেছি, সেসব খাবারের চার্ট করে খাবার টেবিলে রাখতে পারেন। আর যারা লম্বা হতে পারেন নাই, তাদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই।



ট্যাগ - কিভাবে তাড়াতাড়ি লম্বা হওয়া যায়,মেয়েদের লম্বা হওয়ার উপায়,কিভাবে ব্যায়াম করলে লম্বা হওয়া যায়,কিভাবে তাড়াতাড়ি লম্বা হওয়া যায়,কি খেলে লম্বা হওয়া যায়,
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট