পালসার মোটরসাইকেল বাংলাদেশ প্রাইস

পালসার মোটরসাইকেল বাংলাদেশ প্রাইস এই পোস্টে জেনে নিন ।পালসার মোটরসাইকেল দাম কত

 পালসার মোটরসাইকেল বাংলাদেশ প্রাইস -বাজাজ পালসার মোটরসাইকেল ভারতের বাজাজ অটো দ্বারা নির্মিত একটি জনপ্রিয় মোটরসাইকেল ব্র্যান্ড। এটি ২০০১ সালে প্রথম লঞ্চ হয়েছিল এবং এরপর থেকে এটি ভারত এবং অন্যান্য দেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

পালসার মোটরসাইকেলগুলি শক্তিশালী ইঞ্জিন, উন্নত ডিজাইন এবং আরামদায়ক राइডিং অবস্থানের জন্য পরিচিত। এই মোটরসাইকেলগুলি বিভিন্ন দামে এবং বৈশিষ্ট্যের সাথে পাওয়া যায়, তাই প্রতিটি বাজেট এবং চাহিদা পূরণের জন্য একটি উপযুক্ত বিকল্প রয়েছে।

আরো পড়ুন - গিয়ার সাইকেল দাম কত | সাইকেলের ছবি ও দাম ২০২৪

হাইব্রিড বাই সাইকেল | সাইকেল দাম বাংলাদেশ ২০২৪

মোটা চাকার সাইকেল দাম বাংলাদেশ  ২০২৪

হিরো সাইকেলের ছবি ও দাম বাংলাদেশ ২০২৪

লেডিস সাইকেল এর দাম কত

পালসার150 Twin Disc ABS মোটরসাইকেল দাম কত

বাংলাদেশে পালসার150 Twin Disc ABS মোটরসাইকেলের দাম ২৩২,৫০০ টাকা। এই দামটিতে ভ্যাট, ট্যাক্স এবং রেজিস্ট্রেশন ফি অন্তর্ভুক্ত। তবে, ডিলারশিপের উপর ভিত্তি করে দাম কিছুটা কম বেশি হতে পারে।
পালসার150 Twin Disc ABS মোটরসাইকেলে ১৪৯.৫ সিসির ইঞ্জিন রয়েছে যা ১৩.৮ বিএইচপি ক্ষমতা উৎপন্ন করে। এই ইঞ্জিনটি ৫ স্পিড গিয়ার বক্সের সাথে যুক্ত। মোটরসাইকেলটিতে ডিস্ক ব্রেক এবং এবিএস সিস্টেম রয়েছে।

বাজাজ পালসার 150 Twin Disc মোটরসাইকেল দাম কত

বাজাজ পালসার ১৫০ টুইন ডিস্ক মোটরসাইকেলের দাম ১,৯৬,৯০০ টাকা। এটি বাংলাদেশের উত্তরা মোটরস লিমিটেডের অফিসিয়াল দাম। তবে, বিভিন্ন ডিলারের কাছ থেকে দাম কিছুটা কম বেশি হতে পারে।
বাজাজ পালসার ১৫০ টুইন ডিস্ক একটি ১৪৯.৫ সিসি, ৪-স্ট্রোক, এয়ার-কুল্ড, সিঙ্গেল-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এটি সর্বোচ্চ 12.5 বিএইচপি শক্তি এবং ১১.৫ এনএম টর্ক উৎপন্ন করে। বাইকটিতে ১৫০ মিমি সামনের ডিস্ক এবং ১৩০ মিমি পিছনের ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। এটিতে ১০ লিটারের জ্বালানি ট্যাঙ্ক রয়েছে।

পালসার মোটরসাইকেল বাংলাদেশ প্রাইস

বাজাজ পালসার NS160 Twin Disc ABS মোটরসাইকেল দাম কত

বাজাজ পালসার NS160 টুইন ডিস্ক ABS মোটরসাইকেলের দাম ২,১০,০০০ টাকা। এটি বাংলাদেশের উত্তরা মোটরস লিমিটেডের অফিসিয়াল দাম। তবে, বিভিন্ন ডিলারের কাছ থেকে দাম কিছুটা কম বেশি হতে পারে।
বাজাজ পালসার NS160 টুইন ডিস্ক ABS একটি ১৬০.৩ সিসি, ৪-স্ট্রোক, এয়ার-কুল্ড, সিঙ্গেল-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এটি সর্বোচ্চ ১৫.৫ বিএইচপি শক্তি এবং ১৩.৬ এনএম টর্ক উৎপন্ন করে। বাইকটিতে ১৩০ মিমি সামনের ডিস্ক এবং ১৩০ মিমি পিছনের ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। এটিতে ১২ লিটারের জ্বালানি ট্যাঙ্ক রয়েছে।
বাজাজ পালসার NS160 টুইন ডিস্ক ABS একটি স্পোর্টস বাইক যা এর শক্তিশালী ইঞ্জিন, আকর্ষণীয় ডিজাইন এবং উন্নত ব্রেকিং সিস্টেমের জন্য পরিচিত। এটি বাংলাদেশের বাজারে একটি জনপ্রিয় বাইক।

বাজাজ পালসার NS 160 মোটরসাইকেল দাম কত

বাজাজ পালসার NS 160 মোটরসাইকেলের দাম দুটি ভ্যারিয়েন্টে বিভক্ত:
  1. Single Disc: ১,৮৪,০০০ টাকা
  2. Twin Disc ABS: ২,১০,০০০ টাকা
এই দামগুলি বাংলাদেশের উত্তরা মোটরস লিমিটেডের অফিসিয়াল দাম। তবে, বিভিন্ন ডিলারের কাছ থেকে দাম কিছুটা কম বেশি হতে পারে।
বাজাজ পালসার NS 160 একটি ১৬০.৩ সিসি, ৪-স্ট্রোক, এয়ার-কুল্ড, সিঙ্গেল-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এটি সর্বোচ্চ ১৫.৫ বিএইচপি শক্তি এবং ১৩.৬ এনএম টর্ক উৎপন্ন করে। বাইকটিতে ১৩০ মিমি সামনের ডিস্ক এবং ১৩০ মিমি পিছনের ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। এটিতে ১২ লিটারের জ্বালানি ট্যাঙ্ক রয়েছে।

বাজাজ পালসার RS200 ABS মোটরসাইকেল দাম কত

বাজাজ পালসার RS200 ABS মোটরসাইকেলের দাম ১,৭২,৩৫৮ টাকা (এক্স-শোরুম)। তবে, অন-রোড প্রাইস পড়বে ২,০২,১৪৭ টাকা। আপনি যদি এই মোটরসাইকেল সম্পূর্ণ নগদে কিনতে চান তাহলে 2 লাখ টাকা খরচ করতে হবে।

বাজাজ পালসার RS200 একটি ১৯৯.৫ সিসি, ৪-স্ট্রোক, লিকুইড-কুল্ড, সিঙ্গেল-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এটি সর্বোচ্চ ২৪.৫ বিএইচপি শক্তি এবং ১৮.৬ এনএম টর্ক উৎপন্ন করে। বাইকটিতে ১৩০ মিমি সামনের ডিস্ক এবং ১৩০ মিমি পিছনের ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। এটিতে ১৩ লিটারের জ্বালানি ট্যাঙ্ক রয়েছে।

বাজাজ পালসার N200 মোটরসাইকেল দাম কত

বাজাজ পালসার N200 মোটরসাইকেলের দাম ১,৯৯,০০০ টাকা (এক্স-শোরুম)। তবে, অন-রোড প্রাইস পড়বে ২,২৯,৫৫০ টাকা। আপনি যদি এই মোটরসাইকেল সম্পূর্ণ নগদে কিনতে চান তাহলে ২ লাখ টাকা খরচ করতে হবে।
বাজাজ পালসার N200 একটি ১৯৯.৫ সিসি, ৪-স্ট্রোক, লিকুইড-কুল্ড, সিঙ্গেল-সিলিন্ডার ইঞ্জিন দ্বারা চালিত। এটি সর্বোচ্চ ২৪.২ বিএইচপি শক্তি এবং ১৮.৭ এনএম টর্ক উৎপন্ন করে। বাইকটিতে ১৩০ মিমি সামনের ডিস্ক এবং ১৩০ মিমি পিছনের ডিস্ক ব্রেক রয়েছে। এটিতে ১৩ লিটারের জ্বালানি ট্যাঙ্ক রয়েছে।

উপসংহার :বাজাজ পালসার মোটরসাইকেলগুলি তাদের শক্তিশালী ইঞ্জিন, আকর্ষণীয় ডিজাইন এবং সাশ্রয়ী মূল্যের জন্য বাংলাদেশে একটি জনপ্রিয় পছন্দ। এগুলি শিক্ষার্থী, যুবক এবং মধ্যবয়স্কদের মধ্যে বিশেষভাবে জনপ্রিয়।
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট