অফ পেজ এসইও কি | On-Page SEO Factors 2022

 একটি ওয়েবসাইট Rank করানোর জন্য আপনাকে এসইও জানতে হবে আপনি যদি সঠিকভাবে এসইও না জানেন তাহলে কখনোই আপনি আপনার সাইটকে গুগলের প্রথম পেজে আনতে পারবেন না । আর এসইও করার জন্য আপনাকে দুটি পথ অবলম্বন করতে হবে একটি হলো অনপেজ এসইও আরেকটি হলো অফ পেজ এসইও ।


 মূলত একটি ওয়েবসাইট গুগলের প্রথম পেজে আনার জন্য অনপেজ এসইও সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব বহন করে তাই আপনাকে প্রথমে অনপেজ এসইও সম্পূর্ণ জানতে হবে । আর অনপেজ এসইও করার জন্য আপনাকে বেশ কয়েকটি বিষয়ে নজর দিতে হবে তো আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব ।অনপেজ এসইও রেংকিং যেসকল ফ্যাক্টর গুলি রয়েছে সেই সকল বিষয়গুলো নিয়ে তাই দয়া করে সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন আশা করি আপনার উপকার হবে ।


অন পেজ এসইও - On-Page SEO Factors 2022



 On-Page SEO Factors 2022 - অন পেজ এসইও 


অনপেজ এসইও এর যেসকল ফ্যাক্টর গুলি রয়েছে আমি পর্যায়ক্রমে সকল বিষয়গুলো তুলে ধরব আপনারা যদি সঠিকভাবে এই রেংকিং ফ্যাক্টর গুলি লক্ষ করেন তাহলে আপনার সাইটকে আপনি গুগলের প্রথম পেজে খুব সহজেই নিয়ে আসতে পারবেন ।


1. কিওয়ার্ড যুক্ত টাইটেল ব্যবহার করুন


আপনি যখনই কোন পোস্ট লিখবেন আপনার ওয়েবসাইটের জন্য সেই পোস্টে অবশ্যই কিওয়ার্ড যুক্ত টাইটেল ব্যবহার করবেন ।  আপনি যেই পোষ্টটি লিখেছেন সেই পোষ্টটি মূলত মানুষ গুগলে কিভাবে সার্চ করে সেটি আগে দেখে নিবেন । দেখার পরে আপনি চেষ্টা করবেন সব সময় কম কম্পিটিশন যুক্ত কিওয়ার্ড নিয়ে কাজ করার আপনি যখনই কম কম্পিটিশন যুক্ত কিওয়ার্ড ব্যবহার করবেন আপনি খুব সহজেই গুগলে আপনার ওই পোস্টটিকে নিয়ে আসতে পারবেন । 

টাইটেলের শুরুর দিকে আপনার মেইন কি ওয়ার্ড রাখার চেষ্টা করুন আপনি টাইটেলকে যত সুন্দর ভাবে সাজাতে পারবেন আপনার পোস্ট রেঙ্ক করার সম্ভাবনা তত বেশি থাকবে। কখনোই এলোপাথাড়ি টাইটেল করবেন না টাইটেলে অবশ্যই সার্চেবল কিওয়ার্ড যুক্ত করে তারপরই কেবলমাত্র আপনি পোস্ট লেখা শুরু করবেন ।

আপনি যদি আমার এই পোস্টটি লক্ষ্য করে থাকেন তাহলে দেখবেন আমার পোস্টের টাইটেল এ আমি সার্চেবল যে কিবোর্ডটি রয়েছে সেটির কিন্তু ব্যবহার করেছি আর সেটি হল On-Page SEO Factors20 21। 



 আমার এই পোস্টের মেইন কি ওয়ার্ড হচ্ছে On-Page SEO Factors আমি যেমনটি ভাবে রেখেছি আপনারাও ঠিক একইভাবে আপনার টাইটেল এর মাঝে কিওয়ার্ড রাখবেন ।


2. কাস্টম পার্মালিনক


প্রতিটি পোস্ট করার সময় আপনি অবশ্যই কাস্টম পার্মালিনক ব্যবহার করবেন আপনি যখন পোস্ট করেন অবশ্যই পার্মালিনক এর প্রতি নজর দিবেন । এমন যেন না হয় যে আপনি টাইটেল যেভাবে দিয়েছেন পার্মালিনক ওইভাবে রয়েছে আপনি মেইন কি ওয়ার্ড টাকে পার্মালিনক এর মাঝে রাখুন পার্মালিনক ছোট করুন বেশি বড় করার দরকার নেই ।


আর অবশ্যই কাস্টম পার্মালিনক করার সময় চেষ্টা করবেন আপনার মেইন কীওয়ার্ডটি যেন প্রথমে থাকে এটি করতে অবশ্যই ভুল করবেন না । আপনি যত সুন্দর ভাবে পার্মালিনক সাজাতে পারবেন আপনার পোস্ট করার সম্ভাবনা তত বেশি থাকবে। 


3. মেটা ডেসক্রিপশন সুন্দর ভাবে লিখুন


প্রতিটি পোস্ট করার সময় অবশ্যই মেটা ডেসক্রিপশন লিখবেন । আমরা বেশিরভাগ সময় শুধু পোস্ট লিখে যাই কোন মেটা ডেসক্রিপশন লিখিনা যার ফলে আমাদের পোস্টগুলো রেংক কম করে । তার কারণ হলো এই মেটা ডেসক্রিপশন শুধুমাত্র যে সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে সেই সার্চ ইঞ্জিনগুলো পড়ে থাকে ।আমরা মানুষরা ডেসক্রিপশন খুবই কম পড়ি এটি মূলত লেখায় সার্চ ইঞ্জিনের  জন্য । মেটা ডিস্ক্রিপশন লেখার সময় অবশ্যই লক্ষ্য রাখবেন আপনার টাইটেল এর মেইন কি ওয়ার্ড টি যেন এর ভিতরে থাকে।

 আপনার মেইন কি ওয়ার্ড যখন সার্চ ইঞ্জিন খুব সহজে খুজে পাবে আপনি দেখবেন আপনার সেই পোষ্টটি দূরত্ব ভাবে সে সবার সামনে হাজির করার চেষ্টা করবেন তাই সঠিকভাবে মেটা ডিস্ক্রিপশন লেখার চেষ্টা করুন ।



4. ইন্টারনাল লিংকিং


আপনি যখন একটি পোস্ট লিখবেন সব সময় চেষ্টা করবেন আপনার সেই পোস্টে ব্যাকলিংক করার জন্য । আর সেই ব্যাকলিংক কি যেন হয়ে থাকে আপনার সাইট এর ভিতর আপনার সাইটের বিতর আপনি যত বেশি ব্যাকলিংক করতে পারবেন আপনার সেই পোষ্টটি ততবেশি গুগল অথবা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে rank করতে সাহায্য করবে  ।



5. ইমেজ ALT TAG ব্যবহার করুন

আপনি যখন একটি পোস্ট লিখবেন সেই পোস্টে আপনি যতগুলি ইমেজ ব্যবহার করেন আপনি সবসময় সেই ইমেজের অল্টার টেক্সট দিতে ভুলবেন না । তার কারণ হলো এই ইমেজের অল্টার টেক্সট পড়েই সার্চ ইঞ্জিনগুলো বুঝে নেয় যে আসলে ইমেজটি কি সম্পর্কে আর অবশ্যই অল্টার ট্যাগ ব্যবহার করার সময় আপনি আপনার মেইন কি ওয়ার্ড এই ট্যাগের ভেতর রাখবেন এতে করে আপনার পোস্ট করতে সাহায্য করবে ।


6. সার্চ কনসোল আর বিং ওয়েবমাস্টার টুল ব্যবহার করুন


 আপনার সাইটে যখন চার থেকে পাঁচটি পোস্ট দেওয়া শেষ হবে তারপর আপনি গুগোল এর সার্চ কনসোল এবং বিংয়ের ওয়েবমাস্টার টুল ব্যবহার করুন ।

 আপনার ওয়েবসাইটটি কে গুগলের সার্চ কনসোল এবং এর ওয়েবমাস্টার টুল এ সঠিকভাবে সাবমিট করুন আর সঠিকভাবে একটি সাইট ম্যাপ করে দিন ।


 যাতে করে এই দুটি সার্চ ইঞ্জিন আপনার সাইটে সঠিকভাবে প্রবেশ করতে পারে এবং আপনার যেই ইনফরমেশন গুলি থাকে আপনার ওয়েবসাইটে সেটি যেন তাদের ভিতর ইনডেক্স করে নিতে পারে ।


আপনার সাইট ভালো অবস্থানে আনার জন্য এই টুল এর বিকল্প আসলে আর কিছু নেই । এই টুল থেকে আপনি আপনার সাইটের পারফরম্যান্স ,ত্রুটি এবং  কি কি কিওয়ার্ড সার্চ করে আপনার সাইটে মানুষ ভিজিট করতেছেন এটি জানতে পারবেন । এবং পরবর্তীতে আপনি ঐ সকল কিওয়ার্ড নিয়ে পুনরায় আবার পোস্ট লিখলে খুব সহজেই রেংক করাতে পারবেন ।


7. রেস্পন্সিভ ডিজাইন করুন সুন্দরভাবে


 আপনার সাইটটি রেস্পন্সিভ ভাবে ডিজাইন করুন খুব সুন্দর করে ।  আপনার সাইটে বিভিন্ন দেশ থেকে ভিজিটর ভিন্ন ভিন্ন ডিভাইস থেকে আপনার সাইট ভিজিট করতে পারে তো এখন আপনার সাইট যদি রেস্পন্সিভ ডিজাইন করা না থাকে তাহলে সঠিক ভাবে আপনার সাইটটি দেখা যাবে না এর ফলে আপনি ঐ সকল  ভিজিটর গুলি হারাবেন । আর আপনি যদি সঠিকভাবে রেস্পন্সিভ ডিজাইন করে থাকেন তাহলে দেখবেন সকল ভিজিটর আপনার সাইটে সঠিকভাবে ভিজিট করতে পারবে অর্থাৎ তাদের ডিভাইসে আপনার সাইটটি সঠিকভাবে দেখতে পারবে এতে করে ভিজিটর পর্যায়ক্রমে আপনার সাইটে বৃদ্ধি পাবে তাই রেস্পন্সিভ ডিজাইনের প্রতি নজর দিন ।


8. লোডিং টাইম কমানোর চেষ্টা করুন

আপনার ওয়েবসাইটের লোডিং টাইম কমানোর চেষ্টা করুন আপনি যত বেশি আপনার সাইট দ্রুত লোড করাতে পারবেন আপনি দেখবেন ততবেশি সার্চ ইঞ্জিন আপনার সাইটকে রেংক দেবার চেষ্টা করবে এবং ভিজিটর আপনার সাইটে যেতে আগ্রহ করবে।

আর যদি আপনার সাইট লোড নিতে অনেক সময় নেয় তাহলে আপনি সার্চ ইঞ্জিন এর কাছে রেঙ্ক পেতে কষ্ট হবে এবং ভিজিটর যারা ভিজিট করবেন তারা আপনার সাইটটিকে ইগনোর করবেন অর্থাৎ আপনার সাইটটি তারা ভিজিট করবে না । 

 ধরুন আপনি একটি সাইটে প্রবেশ করতে গেলেন কিন্তু সেই সাইটটি অনেক সময় ধরে লোড নিচ্ছে সেই সাইটে আপনি প্রবেশ করতে পারছেন না । আপনি নিজেই দেখবেন আপনি সেই সাইট থেকে বের হয়ে ওই একই বিষয়ের উপর আপনি অন্য একটি সাইটে প্রবেশ করবেন যে এই সাইটটিতে খুব দ্রুত ভাবে লোড নেয় ।  তাই আপনি আপনার সাইটটিকে যত বেশি কম সময়ে দ্রুত লোড করাতে পারবেন দেখবেন ভিউয়ার ততবেশি আপনার সাইটের প্রতি আকৃষ্ট হবে ।


তাই লোডিং টাইম এর উপর খুব ভালো করে মনোযোগ দিন আর চেষ্টা করুন লোডিং টাইম কমানোর জন্য ।

9. লং পোস্ট করার চেষ্টা করুন

আপনি যখন পোস্ট করবেন সবসময় চেষ্টা করবেন পোস্টটিকে বড় করে লেখার জন্য। আপনি যখন বড় করে একটি পোস্ট লিখবেন তখন দেখবেন যে ওই পোস্টের ভিতরে অনেকবার আপনার যে মেইন কি ওয়ার্ড টি সেটি অটোমেটিকেলি চলে আসবে এতে করে পাবার জন্য আপনার সুবিধা হবে ।

একটি পোস্ট যখন বড় করে লেখা হয় সেটি পড়তেও অবশ্যই সময় বেশি লাগে গুগলের নতুন যে অ্যালগরিদম সেই অ্যালগোরিদমে এই রিডিং লেভেল যত ভালো হবে ওই পোস্টটি ততো বেশি রাগ করবে । ইউটিউবে যেমন যত ভালো হয় সেই ভিডিওটি কিন্তু ততবেশি মানুষের কাছে পৌঁছাতে থাকে ঠিক তেমনি ভাবে আপনার পোষ্টের যত বেশি সময় নিয়ে মানুষ পড়বে ততবেশি  পোষ্ট টি ততবেশি মানুষের সামনে ইম্প্রেশন করাবে ।

তবে অবশ্যই যে ব্যাপারটি মাথায় রাখবেন প্রয়োজনের অতিরিক্ত কোন কিছুই ভালো না তেমনি আপনার পোস্টটি বড় করতে গিয়ে যেন আপনার প্রধান যেই বিষয় সেটি যেন হারিয়ে না যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন ।



সর্বশেষ কথা হল আপনি যদি উপরের এসইও রেংকিং ফ্যাক্টর গুলি মেনে চলেন তাহলে দেখবেন যে আপনি খুব দ্রুত ভাবে আপনার ওয়েবসাইটটি কে সার্চ ইঞ্জিনে রেংক করাতে পেরেছেন ।  আশা করি আজকের এই অনপেজ এসইও ফ্যাক্টর যে বিষয়গুলো তুলে ধরলাম এই বিষয়গুলি আপনার কাজে দিবে এই পোষ্ট সম্পর্কে আপনার যদি কোন মতামত থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করবেন । 


Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url