Youtube Video SEO Bangla || ইউটিউব ভিডিও এসইও || এসইও টিউটোরিয়াল

 ইউটিউব বর্তমান সময়ে সবচেয়ে ব্যবহৃত জনবহুল ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপস এবং বলা হয়ে থাকে যে দ্বিতীয় সার্চ ইঞ্জিন  হিসেবে যদি কেউ আসে তাহলে সেটি হল ইউটিউব ।  ইউটিউব এতটাই জনপ্রিয় বর্তমান সময়ের টেলিভিশন - ইলেকট্রনিক মিডিয়া গুলো রয়েছে সেগুলো কেউ হার মানিয়ে এটি অবস্থান করে নিয়েছে সবার উপরে । 


ইউটিউব এ অনেকেই ভিডিও শেয়ার করেছেন নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য আবার অনেকেই ভিডিও শেয়ার করেছেন শুধুমাত্র বিনোদনের জন্য । তবে বেশিরভাগ ইউটিউব চ্যানেল গুলি আসলে মূলত ইনকামের উদ্দেশ্যেই করা হয়ে থাকে ।


আপনি যদি একজন সফল ইউটিউবার হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে ইউটিউব ভিডিও এসইও জানতে হবে আপনি যদি ইউটিউব ভিডিও এসইও  সঠিক ভাবে না করতে পারেন তাহলে আপনি কখনো একজন সফল ইউটিউবার হতে পারবেন না এজন্য অবশ্যই আপনাকে ইউটিউব ভিডিও এসইও  জানতে হবে ।


আজকের এই পোস্টে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব যে কিভাবে আপনি সঠিকভাবে ইউটিউব ভিডিও এসইও করবেন তো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন এবং বুঝার চেষ্টা করবেন আপনার যদি বুঝতে কোথাও কোন ধরনের সমস্যা হয় তাহলে অবশ্যই এই পোষ্টের নিচে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করবেন।


Youtube Video SEO Bangla


Youtube Video SEO Bangla || ইউটিউব ভিডিও এসইও || এসইও টিউটোরিয়াল



 ইউটিউব ভিডিও এসইও  করার সময় অবশ্যই বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখবেন সে বিষয়গুলো নিয়ে এখন আমি বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব আপনারা প্রত্যেকটি বিষয় মনোযোগ সহকারে পড়বেন এবং বোঝার চেষ্টা করবেন

1. টাইটেলের সাথে কি ওয়ার্ড ব্যবহার করুন



আপনি যে বিষয়ে ভিডিও তৈরি করেন না কেন আপনি সবসময় মনে রাখবেন আপনার সেই ভিডিওর সাথে যেন সার্চেবল কিওয়ার্ড থাকে ।  যেই বিষয় নিয়ে ইউটিউবে প্রচুর পরিমাণে সার্চ করে আপনি সবসময় চেষ্টা করবেন সেই ধরনের কীওয়ার্ডগুলি আপনার টাইটেল এর মাঝে রাখার জন্য এতে করে আপনার ভিডিওটি দেখে আসার জন্য প্রচুর সহায়তা লাভ করবে ।

 সব সময় চেষ্টা করবেন ট্রেন্ডিং বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করার বর্তমানে আসলে কোন বিষয়টি মানুষ দেখতে চাচ্ছে এমন একটি বিষয় নিয়ে  ভিডিও তৈরি করবেন । 


 আপনি নিজেই দেখবেন যে কি-ওয়ার্ড এর উপর ভিত্তি করে আপনার ভিডিওগুলি রিকমেন্ডেড করে ।এতে করে অন্য একজনের ভিডিও যদি প্লে করে তার কিওয়ার্ডের সাথে যদি আপনার কি-বোর্ডের মিল থাকে দেখবেন যে আপনার ভিডিও ওই ভিডিওর নিচে দেখাচ্ছে ।



এজন্য কখনোই মেইন কি ওয়ার্ড আপনার টাইটেলের সাথে রাখতে ভুল করবেন না ।




2. ক্লিক থামনেল



আপনি যে ভিডিও তৈরি করবেন অবশ্যই সেই ভিডিওর আন্টি যেন খুব সুন্দর হয়  । যেন মানুষ ইচ্ছাকৃতভাবে আপনার সেই থামনেল এ ক্লিক করে ভিডিওটি দেখতে চায় । তবে অবশ্যই মনে রাখবেন কোন ধরনের সেই কোন থামনিল আপনে ব্যবহার করবেন না এতে করে আপনার ভিডিওটি কমিউনিটি গাইডলাইন এর আন্ডারে চলে যেতে পারে । 


থামনেল যখন ব্যবহার করবেন সে থামল এসইও করে নেবেন এই এটি করার জন্য আপনি ফটোশপ ব্যবহার করতে পারেন ।   থামনেল এসইও বলতে আপনার ভিডিওর যে কী-ওয়ার্ডটি থাকবে ওই মেইন কিওটি অবশ্যই এই থামলে দিয়ে দিবেন । আপনি অবশ্যই এমন একটি থামনেল তৈরি করবেন যেটি দেখে যে কোন মানুষ যাতে ক্লিক করতে বাধ্য হয় আপনার থামনিল যত সুন্দর হবে আপনার ভিডিওটি রেংক করার ততই সম্ভাবনা থাকবে ।



3. ডেসক্রিপশন



 ভিডিও আপলোড করার পর আপনি অবশ্যই ডেসক্রিপশন লিখতে ভুলবেন না আর ডেসক্রিপশন এর মাঝে অবশ্যই আপনার মেইন কি ওয়ার্ড গুলি রেখে দিবেন । আমরা এই কাজটি করতে অনেকেই ভুলে যাই অথবা যে কাজটি করে থাকে ডেসক্রিপশন বক্সে আমাদের মেইন কি ওয়ার্ড কে প্রকাশ করি না ।
 

প্রতিটি ভিডিও আপলোডের ক্ষেত্রে আপনি ওই ভিডিও ডিসক্রিপশন বক্স এ মেইন কি ওয়ার্ড ফোকাস রাখবেন  এতে করে ইউটিউব এর অ্যালগরিদম রয়েছে সে খুব সহজেই আপনার ভিডিওটিকে খুঁজে পেতে সাহায্য করবে ।


4. হ্যাশট্যাগ



 প্রতিটি ভিডিও আপলোড এর সময় অবশ্যই ভিডিও ডেসক্রিপশন বক্সে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করবেন  । আর হ্যাশট্যাগ টি অবশ্যই আপনার মেইন কি ওয়ার্ড দিয়ে তৈরি করবেন । 


তবে বেশি পরিমাণে হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করবেন না সর্বোচ্চ তিনটি ব্যবহার করবেন । 



5. ট্যাগ


 প্রতিটি ভিডিও আপলোড এর সময় আপনি অবশ্যই ট্যাগ ব্যবহার করেন আপনি ট্র্যাকগুলো এমনভাবে ব্যবহার করেন যেই বিষয়গুলি আসলে মানুষ ইউটিউবে সার্চ করে আপনার ভিডিও যে রিলেটেড  ওই ধরনের কিওয়ার্ড ব্যবহার করেন । 



 তবে অবশ্যই কোন ভুলভাল ট্যাগ ব্যবহার করবেন না এতে করে আপনি ইউটিউব কমিউনিটি গাইডলাইন এর আন্ডারে চলে যেতে পারেন । আপনি যত সুন্দর করে আপনার ট্যাগগুলি ব্যবহার করতে পারবেন ওই ভিডিওটি করার জন্য ততটাই সহায়তা করবে ।


6. ওয়াচ টাইম




 আপনার ভিডিওটি মানুষ কতক্ষণ ধরে দেখছে সেই ব্যাপারটিকে নজর দিন কারন একটা ভিডিও রেংকিং এর জন্য বর্তমানে  ওয়াচ টাইম সবচেয়ে বেশি কাজ করে ।  টাইম বাড়ানোর জন্য আপনার ভিডিওর কোয়ালিটি নজর দিন হতে পারে সেটি গ্রাফিক্যাল অথবা অডিও । 



আপনার ভিডিওর কোয়ালিটি যত ভালো হবে ভিউয়ার দেখতে ততই আগ্রহী থাকবে আপনি এমন করলেন যে আপনার ভিডিও ভালো দেখা যাচ্ছে কিন্তু অডিওটি শুনতে বাজে শোনাচ্ছে এমন হলে কিন্তু আপনার সেই ভিডিওটি স্কিপ করতে পারে ।

 আপনার ইউটিউব চ্যানেলের এনালাইটিক্স ব্যবহার করে আপনার ভিডিওর ওয়াচ টাইম দেখুন যে কি পরিমান সময় নিয়ে মানুষ আপনার ভিডিওটি দেখছে এরপর সেই অনুসারে আপনি আপনার ভিডিওর কোয়ালিটি বাড়ানোর চেষ্টা করুন ।


7. ভিডিও এবং ইমেজ আপলোড




ইউটিউব ভিডিও এসইও সঠিকভাবে করার জন্য আপনি অবশ্যই ভিডিও এবং ইমেজ আপলোড করার আগে অফ পেজ এসইও করে নেবেন ।  আমরা অনেক সময় এই ভুলটি করে থাকি ভিডিও আপলোড করার পরে তারপরে আমরা টাইটেল চেঞ্জ করে এই কাজটা না করে আপনি ভিডিও আপলোডের পূর্বে আপনার সেই ভিডিওটির একটি রিনেম করুন ।  মানে হল আপনার ভিডিওর টাইটেলের অনুসারে ভিডিওটির রিনেম করেন শুধু ভিডিওটির করলেই হবেনা আমরা যে ইমেজটা আপলোড করি সেই ইমেজটির একই পর্যায়ে আপনি রিনেম করুন । 


আপনি যদি সঠিকভাবে ভিডিও এবং ইমেজের অফ পেজ এসইও ভালোভাবে করতে পারেন ওই ভিডিওটি ব্যাংক করার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যাবে । 





8. লং ভিডিও



লং ভিডিও তৈরি করতে পারে র‌্যাঙ্কিংয়ে জন্য খুবই ভালো হয় , তাই সবসময় চেষ্টা করুন লং ভিডিও করার ।  লং ভিডিও তৈরি করার আরও একটি সুবিধা হল আপনার ওয়াচ টাইম খুব দ্রুত আকারে বৃদ্ধি করে এতে করে আপনার ভিডিও রং করার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায় । এমন কাজ করবেন না যেন আবার আপনার টপিকের বাহিরে চলে যায় আপনি ঠিক যে বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করবেন সেই বিষয়ের উপরে যেন ভিডিওটি থাকে ভিউয়ার যাতে বিরক্ত না হয় । 


9. এন্ড স্কিন



প্রতিটি ভিডিও আপলোড এর সময় আপনি এন্ড স্কিন ব্যবহার করুন। এন্ড স্ক্রিন ব্যবহার করার ফলে ভিউয়ার আপনার এই ভিডিও থেকে আরেক ভিডিও দেখতে থাকবে এতে করে আপনার ভিডিওগুলি খুব দ্রুত ভাবে রেংক করবে । 


আমরা অলসতার জন্য এন্ড স্ক্রিন ব্যবহার করিনা অনেকেই রয়েছে এমন কিন্তু আপনাকে ভাবতে হবে ইউটিউব স্বাভাবিকভাবেই এই অপশনটি কিন্তু চালু করেনি ।  তারা কিন্তু ভিডিও  রেংকিং এর  জন্য   এবং   ভিউয়ারদের সুবিধার কথা চিন্তা করেই এই এন্ড স্কিনের ব্যবস্থাটি করেছে তো তার জন্য সবসময় ভিডিও আপলোডের করার ক্ষেত্রে অবশ্যই এন্ড স্কিন ব্যবহার করবেন ।



শেষ কথা হল আমি আশা করি আজকের এই ইউটিউব ভিডিও এসইও পোস্টটি আপনাদের একটু হলেও সহায়তা করবে আপনার যদি ইউটিউব ভিডিও এসইও সম্পর্কে আরো ভালো কিছু জানার থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন ।

 মনে রাখবেন ইউটিউব ভিডিও এসইও ছাড়া আপনি কিন্তু সফল একজন ইউটিউবার হতে পারবেন না এজন্য আপনি সবসময় আপডেট থাকুন বিভিন্ন বড় বড় ইউটিউব চ্যানেল কে ফলো করুন তারা কি ধরনের টিপস এবং ট্রিকস গুলো দেয় । 




Next Post
No Comment
Add Comment
comment url