দরখাস্ত লেখার নিয়ম | প্রধান শিক্ষকের কাছে দরখাস্ত লেখার নিয়ম

দরখাস্ত লেখার নিয়ম - আমাদের কাছে আবেদন পত্র দরখাস্ত নামে পরিচিত। আমাদের ছুটির প্রয়োজন বা আমাদের সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে আমরা অফিশিয়াল ভাবে যে ধরনের পত্র প্রদান করে থাকি। সেটিকেই দরখাস্ত বলা হয়। আর এই ধরনের দরখাস্ত আমরা স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটি, অফিস-আদালত ইত্যাদি কাজে ব্যবহার করে থাকি। 


প্রযুক্তির কারণে আমাদের দরখাস্তের ব্যবহার অনেক কমে গেছে।  তবুও সরকারি এবং বেসরকারি অনেক ক্ষেত্রে আমরা দরখাস্ত লিখে থাকি।  আর এ ধরনের দরখাস্ত লেখার জন্য  আমাদের কিছু নিয়ম রয়েছে। আমরা যদি সঠিক নিয়মে দরখাস্ত লিখি। তাহলে আমাদের আবেদনপত্র মন্জুর হয়। তাই আমাদের সঠিক ভাবে দরখাস্ত লেখার নিয়ম শেখা উচিত।


অন্য পোষ্ট - 

জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস | Happy Birthday Sms Bangla

   বিকাশ লাইভ চ্যাট - Bkash Live Chat



দরখাস্ত লেখার নিয়ম



দরখাস্ত লেখার নিয়ম



দরখাস্ত লেখার জন্য কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। আর এই নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে দরখাস্ত না  লিখলে দরখাস্ত বর্জন করা হয়। তাহলে চলুন জেনে নেই দরখাস্ত লেখার সঠিক নিয়ম।


১. প্রথমে সবার উপরে তারিখ লিখতে হয়। 

২. এরপর প্রাপকের নাম, পদবী এবং ঠিকানা লিখতে হবে। 

৩. এর নিচে আপনার আবেদন এর বিষয় লিখতে হবে। আবেদনের বিষয় আপনার আবেদনের মূল অংশ। 

৪. বিষয় লেখার নিচে জনাব/জনাবা শব্দটি লিখতে হয়। তবে বর্তমানে জনাবা লেখা হয় না। তাই  জনাব লেখা শ্রেয়। 

৫. এরপর আপনার আবেদনপত্রটি যে বিষয়ে লেখা হবে ঠিক সে বিষয়ে নিয়ে আপনার সংক্ষিপ্ত আকারে গঠনমূলকভাবে বর্ণনা করবেন। 

৬. আপনার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা লেখার পর নিচে বিনীত/ইতি কথাটি লিখতে হয়।

৭. এরপর আপনার নাম অর্থাৎ আবেদনকারীর নাম ও ঠিকানা দিতে হবে। 
 
এখন আপনার আবেদনপত্রটি একটি সুন্দর খামের মধ্যে রেখে প্রাপকের নিকট পাঠাতে হবে। 




প্রধান শিক্ষকের কাছে দরখাস্ত লেখার নিয়ম | স্কুল  দরখাস্ত লেখার নমুনা



সঠিকভাবে দরখাস্ত লেখার নমুনা নিম্নে তুলে ধরব।



তারিখঃ ০১/০১/২০২২ ইং
বরাবর,
প্রধান শিক্ষক,
আদর্শ উচ্চ বিশ্ববিদ্যালয়
যাত্রাবাড়ী, ঢাকা-১২০০।


বিষয়ঃ বড় ভাইয়ের বিয়ের জন্য ছুটির আবেদন।
জনাব,
সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, (এখানে সংক্ষিপ্তে আপনার প্রয়োজনীয় কথা উল্লেখ করবেন)



বিনীত,
আপনার নিয়মিত ছাত্র
আয়শা আক্তার
শ্রেণীঃ ৯ম
রোল- ০৪



ছুটির দরখাস্ত লেখার নিয়ম ও নমুনা



আমরা যখন স্কুল ,কলেজ, ভার্সিটি, প্রশাসনিক কার্যালয় অবস্থান করি। তখন কার্যরত অবস্থায় আমাদের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের ছুটির প্রয়োজন হতে পারে। যেমন নিজের জন্য, পরিবারের জন্য, আত্মীয় স্বজনের জন্য, অসুস্থতার জন্য, বিয়ের জন্য, অনুষ্ঠান বা যেকোনো ছুটির জন্য আবেদন পত্র লেখার জন্য কিছু সঠিক নিয়ম জেনে নেওয়া উচিত। আমরা এখন সঠিকভাবে দরখাস্ত লেখার নিয়ম জেনে নিব।





তারিখঃ ০১/০১/২০২২ ইং
বরাবর,
প্রধান শিক্ষক,
আদর্শ উচ্চ বিশ্ববিদ্যালয়।
যাত্রাবাড়ী, ঢাকা-১২০০।

বিষয়ঃ অগ্রিম ছুটির জন্য  আবেদন।
জনাব,

সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি সজিব হোসেন আপনার বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর একজন নিয়মিত ছাত্রী। আগামী ০৩/০১/২০২২ ইং রোজ শুক্রবার আমার বড় বোনের শুভ বিবাহ অনুষ্ঠিত হবে বিধায় ০২/০১/২০২২ ইং থেকে ৫/০১/২০২২ ইং পর্যন্ত মোট ৪ দিন বিদ্যালয়ে উপস্থিত হতে পারবো না।


অতএব, মহোদয়ের নিকট আমার আকুল আবেদন এই যে, উপরোক্ত বিষয়টি বিবেচনা করে আমাকে ০৪ দিনের অগ্রিম ছুটি প্রদানে বাধিত করবেন।

বিনীত
আপনার নিয়মিত ছাত্র
আয়শা আক্তার
শ্রেণীঃ ৯ম
রোল- ০৪




ছাড়পত্রের জন্য আবেদন



তারিখঃ ০১/০১/২০২২ ইং
বরাবর,
প্রধান শিক্ষক,
আদর্শ উচ্চ বিশ্ববিদ্যালয়।
যাত্রাবাড়ী, ঢাকা-১২০০।

বিষয়ঃ ছাড়পত্রের জন্য আবেদন।
জনাব,

সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি সজিব হোসেন আপনার বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর  একজন  নিয়মিত ছাত্র। আমার বাবা একজন সরকারী চাকরিজীবি। তাঁর বর্তমান কর্মস্থল জকিগঞ্জ উপজেলা হতে বিয়ানিবাজার উপজেলায় বদলি হওয়ায় আপনার বিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করা সম্ভব হবে না।


অতএব, মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন এই যে, আমার সমস্যার বিষয়টি বিবেচনা করতঃ সকল বকেয়া বেতন ও ফি পরিশোধ পূর্বক আমাকে ছাড়পত্র প্রদানের জন্য আপনার সুমহান মর্জি কামনা করছি।

বিনীত
আপনার নিয়মিত ছাত্র
আয়শা আক্তার
শ্রেণীঃ ৯ম
রোল- ০৪



অফিসিয়াল ছুটির আবেদন (অগ্রিম ছুটি)



তারিখ-০১/০১/২০২২ ইং
বরাবর,
ব্যবস্থাপক,
সোনালী ব্যাংক লিঃ।
ঢাকা

বিষয়ঃ নৈমিত্তিক ছুটির আবেদন।
জনাব,

সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি নিম্নস্বাক্ষরকারী আপনার অধিনস্থ সোনালী  ব্যাংক লিঃ, ঢাকা। এ সিনিয়র অফিসার হিসেবে কর্মরত আছি। আগামী ০১/০১/২০২২ খ্রিঃ তারিখ আমার ছোট বোনের শুভ বিবাহ অনুষ্ঠিত হবে বিধায় ০১/০১/২০২২ খ্রিঃ হতে ০৩/০১/২০২২ খ্রিঃ তারিখ পর্যন্ত মোট ০৩ (তিন) দিনের ছুটি ভোগ করা একান্ত প্রয়োজন।


অতএব, মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন এই যে, উপরোক্ত বিষয়টি বিবেচনাক্রমে ০৩ (তিন) দিনের নৈমিত্তিক ছুটি আপনার সুমহান মর্জি কামনা করছি।

বিনীত
আপনার একান্ত বাধ্যগত
আয়শা আক্তার
সিনিয়র অফিসার
সোনালী  ব্যাংক লিঃ
ঢাকা



অফিসিয়াল ছুটির আবেদন (অনুপস্থিত থাকার জন্য)



তারিখ-০১/০১/২০২২ ইং
বরাবর,
ব্যবস্থাপক,
সোনালী ব্যাংক লিঃ।
ঢাকা

বিষয়ঃ অনুপস্থিতির জন্য ছুটির আবেদন।
জনাব,

সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি নিম্নস্বাক্ষরকারী আপনার অধিনস্থ সোনালী  ব্যাংক লিঃ, ঢাকা এর একজন সিনিয়র অফিসার। আমার শারিরীক অসুস্থতার কারনে গত ০১/০১/২০২২ খ্রিঃ হতে ০৫/০১/২০২২ খ্রিঃ তারিখ পর্যন্ত মোট ০৫ (পাঁচ) দিন অফিসে উপস্থিত হতে পারিনি।

অতএব, মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন এই যে, আমার অসুস্থতার বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিতে বিবেচনা করে অনুপস্থিতি কালের ৫ (পাঁচ) দিন ছুটি মঞ্জুর করতে আপনার সদয় মর্জি হয়।

বিনীত
আপনার একান্ত বাধ্যগত
আয়শা আক্তার
সিনিয়র অফিসার
সোনালী  ব্যাংক লিঃ
ঢাকা



চাকরির জন্য দরখাস্ত লেখার নিয়ম | সহকারী শিক্ষক পদে চাকরির আবেদন



তারিখঃ ০১/০১/২০২১ ইং
বরাবর,
সভাপতি,
আদর্শ উচ্চ বিশ্ববিদ্যালয়।
যাত্রাবাড়ী, ঢাকা-১২০০

বিষয়ঃ সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য আবেদন।
জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, গত ০১/০১/২০২১ খ্রিঃ তারিখে দৈনিক “ঢাকা এর ডাক” পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানতে পারলাম যে, সহকারী শিক্ষক পদে আপনার বিদ্যালয়ে ৫ জন লোক নিয়োগ দেওয়া হবে। আমি উক্ত পদের একজন প্রার্থী হিসেবে আমার শিক্ষাগত যোগ্যতাসহ যাবতীয় আনুষাঙ্গিক তথ্যাদি মহোদয়ের নিকট তুলে ধরলাম।


১. নামঃ

২. পিতার নামঃ

৩. মাতার নামঃ

৪. বর্তমান ঠিকানাঃ

৫. স্থায়ী ঠিকানাঃ

৬. জন্ম তারিখঃ

৭. জাতীয়তাঃ

৮. ধর্ম:

৯. বিবাহিতা

১০. শিক্ষাগত যোগ্যতা :




পরীক্ষার নাম বোর্ড পাশের সন প্রাপ্ত গ্রেড
এসএসসি ঢাকা ২০০৭           জিপিএ-৫
এইচএসসি ঢাকা ২০০৯           জিপিএ-৫
বিএসসি         ঢাকা ২০১৪           প্রথম শ্রেণী
এমএসসি ঢাকা ২০১৬            প্রথম শ্রেণী



১১. অভিজ্ঞতাঃ

অতএব, মহোদয়ের নিকট বিনীত আবেদন এই যে, আমকে আপনার বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ পেতে আপনার একান্ত মর্জি হয়।

বিনীত
আপনার একান্ত বাধ্যগত
আয়শা আক্তার
মোবাইলঃ  ০১৭২০-০০০০০০




সাধারণত আমরা আমাদের বিভিন্ন কাজে দরখাস্ত লিখে থাকি। তবে দরখাস্ত লেখার নিয়ম আছে। সেগুলো আমাদের লক্ষ্য রাখা উচিত। কারণ এভাবে দরখাস্ত লিখলে আমাদের দরখাস্ত মান ভালো থাকে। এবং দরখাস্ত গ্রহণযোগ্য হয়ে ওঠে। আমাদের সকলের উচিত সঠিকভাবে দরখাস্ত লেখা।আপনারা যদি এই নিয়মে দরখাস্ত লিখে থাকেন। তাহলে দরখাস্ত আর বাতিল হওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে না। 



দরখাস্তের নমুনার নাম:


চাকরির জন্য দরখাস্ত,  চাকুরীর আবেদন পত্র, অফিসে ছুটির দরখাস্ত লেখার নিয়ম, ছুটির দরখাস্ত লেখার নিয়ম, আবেদন পএ লেখার নিয়ম, চাকরির আবেদন পত্র দরখাস্ত নমুনা, বাংলায় চাকরির আবেদন পত্র লিখবেন কিভাবে, চাকরির আবেদন লেখার নিয়ম, বাংলা দরখাস্ত লেখার নিয়ম,চাকরির জন্য আবেদন পত্র।


 আশা করি, আমরা আপনাদের দরখাস্ত লেখার নিয়ম সঠিকভাবে জানাতে পেরেছি। আপনারা যদি এই নিয়মে দরখাস্ত লিখে থাকেন। তাহলে দরখাস্ত আর বাতিল হওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে না।





Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url