১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই | ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই

১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই:- অনেকেই যারা শুরুতে জন্ম নিবন্ধন করেছিলেন তাদের জন্ম নিবন্ধন সনদটি ছিল হাতে লেখা এবং নিবন্ধন নম্বর ১৬ ডিজিটের ছিল। জন্ম নিবন্ধন সিস্টেম আপডেট করার কারণে এ ধরনের ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই করলে অনলাইনে পাওয়া যায় না। আপনার যদি একই সমস্যা হয় বা নিবন্ধন নম্বরটি ১৬ ডিজিটের হয় কিভাবে ১৭ ডিজিটের শুদ্ধ নম্বরটি বের করবেন তার কৌশল আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই | ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই

আরো পড়ুন - জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে কত টাকা লাগে 


জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট করার নিয়ম



প্রথমে যে জন্ম নিবন্ধন গুলো রেজিষ্ট্রেশন করা হতো সেই জন্ম নিবন্ধন গুলো হাতে লিখা এবং এই জন্ম নিবন্ধনের নম্বর ১৬ ডিজিটের ছিল। যা এখনো রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে জন্ম নিবন্ধন সিস্টেম আপডেট এবং নবায়ন করার ফলে ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বরের পরিবর্তে ১৭ ডিজিট করা হয়েছে।


এজন্য যাদের জন্ম নিবন্ধন পুরনো এবং জন্ম নিবন্ধন নম্বর ১৬ ডিজিটের তাদের জন্ম নিবন্ধন অনলাইন যাচাই করলে পাওয়া যায় না। আপনার যদি এই সমস্যাটি হয় তাহলে আপনার জন্ম নিবন্ধন ১৬ ডিজিট থেকে ১৭ ডিজিট করতে হবে। তাই এই নিবন্ধনে আমরা জন্ম নিবন্ধন ১৬ ডিজিট থেকে ১৭ ডিজিট করার নিয়ম সম্পর্কে বলব।




১. জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট করার জন্য আপনার ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বরের শেষ ৫ ডিজিটের পূর্বে একটি শুন্য (০) যোগ করতে হবে। অথবা প্রথম ১১ ডিজিটের পর শুন্য (০) যোগ করেও ১৭ ডিজিট করতে পারবেন  জন্ম সনদের ১৭ ডিজিটের মধ্যে প্রথম ৪ ডিজিট ব্যক্তির জন্ম সাল এবং শেষ ৬ ডিজিট ব্যক্তিগত পরিচিতি নম্বর।

যেহেতু, পূর্বের জন্ম সনদে শেষ ৫ ডিজিট ব্যক্তিগত পরিচিতি নম্বর ছিল, সেটাকে ৬ ডিজিট করার জন্য শুরুতে একটি ০ যোগ করতে হবে।

২. নিবন্ধন নম্বরের শেষ ৫ ডিজিট হচ্ছে ০১৩১১। এখন আপনাকে এর ঠিক শুরুতে একটি শুন্য দিতে হবে, যেমন- ০০১৩১১। এরপর আপনার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করে দেখুন।



আপনাদের যে প্রশ্ন গুলো মনে হবে সেগুলো  প্রশ্নসহ  উওর


১৬ ভিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই সম্পর্কে আপনাদের যে প্রশ্নগুলো থাকতে পারে যে প্রশ্নগুলো এবং তার উত্তর নিচে আলোচনা করা হলো।


১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর কিভাবে ১৭ ডিজিট করব?



নিজের জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিটের করার কোনো উপায় নেই। তবে আপনি জন্ম নিবন্ধন অনলাইন যাচাই করার জন্য, পুরাতন জন্ম নিবন্ধন নম্বরের ১৬ ডিজিটের শেষ ৫ ডিজিটের পূর্বে একটি শুন্য (০) বসিয়ে ১৭ ডিজিট করতে পারবেন। এবং এই ১৭ ডিজিটের কোডটি দিয়ে জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে যাচাই করতে পারবেন। 




১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বরের জন্য কিভাবে আবেদন করতে হবে?


১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি ১৭ ডিজিটে করার জন্য আপনার পুরাতন জন্ম নিবন্ধন সনদ ইউনিয়ন পরিষদ/পৌরসভা কার্যালয়ের অফিসে জমা দিতে হবে। সেখানে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে নতুন জন্ম সনদ জন্য আবেদন করতে হবে।




১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে না কেন? 


জন্ম নিবন্ধন সনদ অনলাইনে পাওয়া না যাওয়ার ২টি কারণ হতে পারে। প্রথমত আপনার নিবন্ধন নম্বরটি ভুল। অথবা আপনার জন্ম নিবন্ধন তথ্যটি ভুলবশত অনলাইনে আপডেট করা থেকে বাদ পড়েছে। এজন্য, আপনি আপনার জন্ম সনদ নিয়ে রেজিষ্টারের কার্যালয়- ইউনিয়ন পরিষদ/পৌরসভা/ সিটি কর্পোরেশন অফিসে সমস্যাটি জানান।



জন্ম নিবন্ধন যাচাই


আপনারা যদি আপনাদের জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে চান তাহলে এই পোষ্ট টি আপনার দেখতে পারেন। আগে জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে পাওয়া যেত না। বর্তমানে অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে। অতএব আজ আমি জন্ম নিবন্ধন যাচাই সম্পর্কে আলোচনা করব। 


জন্ম নিবন্ধন যাচাই



যদি আপনি চান, আমি আমার জন্ম নিবন্ধন দেখব। আপনি অনলাইনেই তা দেখতে পারবেন। যাচাই করা একদম সহজ। জন্ম নিবন্ধন চেক করার জন্য সর্বপ্রথম everify.bdris.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে হবে। এখানে যাচাই করার জন্য আপনার জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার এবং জন্ম তারিখ লাগবে। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পর একটি পেইজ আসবে।



বাংলাদেশের প্রত্যেক নাগরিকের জন্ম নিবন্ধন তথ্য অনলাইনে দেখা যায়। এটা দেখার জন্য অবশ্যই ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ প্রয়োজন হবে।


যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর ১৬ ডিজিটের হয় এটি ১৭ ডিজিটে রুপান্তর করতে হবে। জন্ম নিবন্ধন যাচাই 19860915428117351 এ ধরনের ১৭ ডিজিট দিয়েই করা যায়।  কিভাবে ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট করবেন তা আমরা উপরে আলোচনা করেছি। আপনারা যদি জানতে চান ১৬ ডিজিট জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ১৭ ডিজিট কিভাবে করবেন। তাহলে, উপরে পড়লে আপনারা জানতে পারবেন।




জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই


এখন আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার এবং জন্ম তারিখ দিয়ে আপনারা কিভাবে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন।


১. প্রথমে আপনার ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি লিখুন (উদাহরণ- 19860915428117351)। Date of Birth এই বক্সে জন্ম তারিখ লিখুন এই ফরমেটে জন্ম নিবন্ধন যাচাই YYYY MM DD ।

২. ক্যাপচা পূরণ করুন এবং সার্চ করুন

ওয়েবসাইট ব্যবহারকারী মানুষ (Human) কিনা চেক করার জন্য একটি গাণিতিক প্রশ্ন বা ক্যাপচা দেওয়া হয়। এটির সঠিক উত্তরটি নিচের বক্সে লিখে Search বাটনে ক্লিক করুন। যদি আপনার জন্ম নিবন্ধনটি ডিজিটাল হয় এবং অনলাইন ডেটাবেইজে থাকে, তাহলে একটি পেইজে জন্ম নিবন্ধন তথ্য দেখতে পারবেন।



আশা করি, আপনার জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই করতে পেরেছেন এই পেইজটি হচ্ছে জন্ম নিবন্ধন যাচাই কপি।  বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের তথ্যের নিশ্চয়তার জন্য জন্ম নিবন্ধনের ভেরিফিকেশন কপি প্রয়োজন হতে পারে। আপনি এটি প্রিন্ট করে ব্যবহার করতে পারবেন।


নাম দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই



আপনাদের সাথে এখন শেয়ার করব জন্ম নিবন্ধন নাম দিয়ে কিভাবে যাচাই করতে পারবেন। আপনারা যদি জানতে চান নাম দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই কিভাবে করবেন তাহলে নিজে পড়ুন।



Birth certificate online verification- নাম দিয়ে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার সুযোগ শুধুমাত্র ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশনেই করা যায়। সাধারণ জনগণের জন্য অনলাইনে নাম দিয়ে জন্ম সনদ যাচাই করার সুযোগ নেই।

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে এবং আপনার নিবন্ধন নম্বর জানা না থাকে, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ থেকে আপনার নাম দিয়ে সার্চ করে নিবন্ধন নম্বরটি জেনে নিতে পারেন।



ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন যাচাই – Online Birth Certificate Check




বিভিন্ন প্রয়োজনে অনেক সময় অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল কিনা যাচাই (online birth certificate check) করার প্রয়োজন হতে পারে।


কারো জন্ম নিবন্ধন তথ্য সঠিক কিনা বা জন্ম নিবন্ধন সনদ আসল কিনা তা যাচাই করে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন যাচাই কপি (Jonmo Nibondhon Online Check Bangladesh) ডাউনলোড করতে পারবেন।


তবে যদি আপনার ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ দিয়ে সার্চ করার পরও No Record Found মেসেজ আসে, এর ২টি কারণ হতে পারে।





শুধুমাত্র জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে জন্ম তথ্য যাচাই করতে পারবেন। মোবাইলে জন্ম নিবন্ধন চেক করার জন্য জন্ম নিবন্ধন ওয়েবসাইট ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড কিভাবে করবেন



যদি উপরের দেখানো নিয়মে আপনার জন্ম নিবন্ধন যাচাই অনলাইন চেক করতে পারেন, তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার জন্ম নিবন্ধনটি ডিজিটাল। আপনার ইউনিয়ন, পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশন অফিস থেকে Digital copy of birth certificate সংগ্রহ করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার জন্য উপরের ছবিটি আপনার স্ক্রিনে আসার পর আপনার কম্পিউটার থেকে প্রিন্ট কমান্ড (ctrl+P) দিয়ে Print to PDF সিলেক্ট করে PDF File হিসেবে সেইভ করতে পারেন।


যদি কম্পিউটারে Print to PDF অপশন না থাকে দেখুন কিভাবে কম্পিউটারে ডকুমেন্টকে PDF File তৈরি করবেন।


যদি আপনার প্রিন্টার থাকলে, আপনি জন্ম নিবন্ধন অনলাইন যাচাই কপিটি প্রিন্ট করে নিতে পারেন এবং ভবিষ্যতের জন্য সংরক্ষণ করতে পারেন। এছাড়া Birth Registration online copy download- জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার আলাদা কোনো উপায় নেই এখন পর্যন্ত।



জন্ম নিবন্ধন তথ্যে ভুল থাকলে সংশোধন কিভাবে করবেন



আপনাদের জন্মনিবন্ধনের যদি কোন ভুল থাকে তাহলে আপনারা সেটি কিভাবে সংশোধন করবেন সেটি নিচে পড়ে জেনে নিন।


জন্ম নিবন্ধন তথ্য অনুসন্ধান করার পর যদি দেখতে পান আপনার নিবন্ধন সনদে কোন তথ্যে ভুল আছে, অতিসত্বর তা সংশোধনের জন্য আবেদন করে সংশোধন করিয়ে নেন। কারণ জন্ম নিবন্ধন সনদে ভুল থাকলে তা পরবর্তীতে বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

বর্তমানে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করা অনেক কঠিন ও ঝামেলাপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে, আপনি অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার আবেদন করতে পারেন। 

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন যাচাই



আপনার জন্ম নিবন্ধনে ভুল হলে সেটি সংশোধন করার পর আপনি কিভাবে তা যাচাই করবেন।সংশোধন হয়েছে কিনা তা যাচাই করতে পারবেন online BRIS ওয়েবসাইট থেকেই। আপনি চাইলে মোবাইলেও এটি চেক করতে পারবেন। কিভাবে করবেন?  জানার জন্য নিচে পড়ুন 


অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের আবেদন করার পর অবশ্যই আবেদনের কপি ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিবন্ধকের কার্যালয়ে জমা দিতে হয়। কাগজপত্র যাচাইয়ের পরই আপনার তথ্য সংশোধন করা হবে।


সংশোধন হয়েছে কিনা তা যাচাই করতে এ লিংকে ভিজিট করুন online BRIS । তারপর আবেদনের ধরণ হিসেবে সিলেক্ট করুন জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর আবেদন। তারপর আপনার Application ID ও জন্ম তারিখ লিখে দেখুন বাটনে ক্লিক করুন।


জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত প্রশ্ন ও উত্তর


জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কে আপনাদের যদি কোন যে প্রশ্নগুলো থাকতে পারে সেগুলো এবং তার উত্তর জেনে নিন।


কিভাবে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করা যায়?


জন্ম নিবন্ধন যাচাই করণের জন্য everify.bdris.gov.bd তে ভিজিট করে ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে জন্ম নিবন্ধন চেক করতে পারবেন।


অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন কিভাবে দেখব?



অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন দেখার জন্য আপনার ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে everify.bdris.gov.bd এ যাচাই করতে হবে। তথ্য সঠিক থাকলে আপনার নিবন্ধন তথ্য স্ক্রীনে দেখতে পাবেন।

জন্ম নিবন্ধন যাচাই অ্যাপস কোনটি?



ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন যাচাইয়ের নতুন apps/ সার্ভার হচ্ছে everify.bdris.gov.bd




জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে না থাকলে কি করতে হবে?



জন্ম নিবন্ধন তথ্য অনলাইনে পাওয়া না গেলে, আপনাকে প্রথমেই নিশ্চিত হতে হবে যে, আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি সঠিক এবং ১৭ ডিজিট। নিবন্ধন নম্বরের প্রথম ৪ ডিজিট আপনার জন্ম সাল হবে। সঠিক জন্ম নিবন্ধন নম্বর জানার জন্য আপনার ইউনিয়ন পরিষদ/ পৌরসভা/ সিটি কর্পোরেশন কার্যালয়ে যোগাযোগ করুন। এরপরও পাওয়া না গেলে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে হবে। বিস্তারিত জানতে পড়ুন- জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে না থাকলে কি করতে হবে।



জন্ম নিবন্ধন ভুল হলে করণীয় কি?



জন্ম নিবন্ধনে কোন ভুল দেখা গেলে, আপনি তা সংশোধনের জন্য অনলাইনে আবেদন করুন। আবেদনের ক্ষেত্রে অবশ্যই প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে। অনলাইনে সংশোধন করার নিয়ম জানতে পড়ুন জন্ম নিবন্ধন সংশোধন।



জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কিনা কিভাবে বুঝবো?


অনলাইনে ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে নিবন্ধন যাচাই করার পর, আপনার তথ্য পাওয়া গেলে বুঝবেন আপনার জন্ম নিবন্ধন অনলাইন।



উপরের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই।জন্ম নিবন্ধন যাচাই। আপনারা যদি এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলে আশা করি, আপনারা ১৬ ডিজিট এর জন্মদিনে যাচাই এবং আপনারা ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন ১৭ ডিজিট কিভাবে করবেন তার নিয়ম আলোচনা করা হয়েছে আপনারা সেগুলো জানতে পারবেন। ১৬ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন যাচাই সম্পর্কে যদি আপনাদের কোন প্রশ্ন থাকে সেগুলোর উত্তর আপনার জানতে পারবেন।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url